যশোরে এক গৃহবধুকে ব্লাক মেইল করে তিনবছর ধরে ধর্ষণ

0 ৮৬
যশোরের রূপদিয়ার শাখারগাতি এলাকার হিরো কোম্পানির প্রোডাক্ট ইনচার্জ আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে এক গৃহবধূকে ব্লাকমেইল করে তিন বছর ধরে ধর্ষণ করার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। ওই নারীর সাথে তার প্রথমে ফেসবুকে পরিচয়। এরপর বাড়িতে অনুষ্ঠানের কথা বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ এবং সেই দৃশ্যের ভিডিও ধারণ করে নিয়মিত বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে ধর্ষণ করেন মান্নান।
বর্তমানে তিনি ওই গৃহবধূর ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করছেন। অন্যথায় তাকে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দিচ্ছেন তিনি। এ কারণে বাধ্য হয়ে ওই নারী তার শিশু সন্তানকে নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।
প্রতিকারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী ওই নারী।রূপদিয়া এলাকার ওই নারী জানান, তিন বছর আগে মান্নানের সাথে তার ফেসবুকে পরিচয় হয়। এরপর কথা হতে থাকে।
এরমধ্যে তাকে মান্নান তার ভাড়া বাড়ি আরবপুর এলাকার হক মঞ্জিলের চার তলায় নিয়ে যান একটি অনুষ্ঠানের কথা বলে। সেখানে গিয়ে দেখেন মান্নান ছাড়া বাড়িতে কেউই নেই। সেখানে ওই নারীকে ধর্ষণ করেন মান্নান। একইসাথে ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করেন।
এরপর মান্নান তার লালসা চরিতার্থ করতে থাকেন। ধারণ করা ভিডিওর ভয় দেখিয়ে কয়েকদিনের মাথায় ওই নারীকে ফের আসতে বলেন মান্নান। তার কথায় রাজি না হলে ভিডিও ফেসবুক, ইন্টারনেটে প্রচারসহ স্বামীর কাছে পৌঁছে দেওয়ার ভয় দেখানো হয়। এরপর ওই গৃহবধূর মাথায় ক্যাপ ও গায়ে গেঞ্জি পরিয়ে ছেলে সাজিয়ে গাড়িতে করে বসুন্দিয়ার শাখারগাতির হিরো কোম্পানির রেস্ট হাউজে নিয়ে যান মান্নান।
সেখানে নিয়ে তিন ঘণ্টার মধ্যে একাধিকবার ধর্ষণ করেন তিনি। এক পর্যায়ে ওই নারী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে গাড়িতে করে বাড়ির সামনে নামিয়ে দেন। কয়েক মাস পর কক্সবাজারে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে।
রাজি না হলে গৃহবধূর শিশু সন্তানকে অপহরণের চেষ্টা চালান কুখ্যাত এই মান্নান। বাধ্য হয়ে ওই নারী রাজি হলে কক্সবাজারের এশিয়া হোটেলে তিনদিন রেখে ধর্ষণ করেন। সেখান থেকে যশোরে ফিরে এসে কয়েকদিনের মাথায় তাকে আবার কুয়াকাটায় নিয়ে যান মান্নান। গত তিন বছরে তার ভাড়া করা ফ্ল্যাট ও কোম্পানির রেস্ট হাউজ এবং যশোরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে নিয়ে অসংখ্যবার ধর্ষণ করেন বলে ওই নারীর অভিযোগ। সর্বশেষ, গত ২৬ জুলাই তাকে কোম্পানির রেস্টহাউজে নিয়ে তিনদিন আটকে রাখেন।
এসময় মান্নানের সাথে তার আরেক সহযোগী খালিদও তাকে ধর্ষণ করে বলে জানান ওই নারী। পরে বিষয়টি কোম্পানির ভিতরে জানাজানি হয়ে যায়। একপর্যায়ে খাবারের মধ্যে বিষ মিশিয়ে তাকে হত্যার চেষ্টা করেন মান্নান ও খালিদ। তখন হাতেপায়ে ধরে কোনো রকমে চলে আসেন তিনি। এরপর থেকে ওই গৃহবধূ মান্নানের ডাকে আর সাড়া দেননি। কিন্তু মান্নান কোনোমতেই তা মানতে নারাজ।
ওই অফিসের রাজু নামের এক কর্মচারীকে প্রতিনিয়ত গৃহবধূর বাড়ি পাঠাচ্ছেন মান্নান। বাড়ি থেকে রাজু গৃহবধূর মোবাইল ফোন ও সিমসহ বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে গেছেন। এখন ওই গৃহবধূ ঘর ছেড়ে বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এর মধ্যে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।
এ অবস্থায় স্বামী, সন্তান নিয়ে বাঁচতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন ওই নারী।এ বিষয়ে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ যশোর জেলা শাখার লিগ্যাল এইড সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুন নাহার কণা জানান, ওই গৃহবধূ তাদের কাছে এসেছিলেন। অভিযোগও দিয়েছে। ওই গৃহবধূ তাদেরকে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন। সেক্ষেত্রে মহিলা পরিষদের পক্ষ থেকে মামলাসহ সকল ধরনের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলে জানান কণা। এ বিষয়ে আব্দুল মান্নান বলেন, তিনি ওই গৃহবধূকে চেনেন। কিন্তু এক পক্ষের অভিযোগ শুনে কিছু বিবেচনা করা যাবে না।
এ বিষয়ে কথা বলতে হলে সামনাসামনি হতে হবে। তার অফিসে যাওয়ার কথা বলেন মান্নান। এরপর ব্যস্ত আছি বলে লাইন কেটে দেন। উল্লেখ্য, কয়েক বছর আগে শাখারগাতি হিরো মোটরসাইকেল কোম্পানি থেকে বিভিন্ন মালামাল চুরি, টাকা নিয়ে অদক্ষ জনবল নিয়োগ এবং ফ্যাক্টরির ভিতরের বিভিন্ন পণ্য আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয় না।
0 0 vote
Article Rating
আরও পড়ুন
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x