,
সংবাদ শিরোনাম :
» « দেখিয়ে দাও তুমি কেন এক নম্বর, সাকিবকে রোডস» « অবশেষে ধ্যান ভেঙে গুহা ছাড়লেন মোদি» « যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যে বেইজিংয়ে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী» « বাগেরহাটে বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা, নিহত ৫» « জ্যান্ত কবর দেয়া শিশুকে মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করলো কুকুর» « রাজধানীতে পৃথক অভিযানে অজ্ঞানপার্টির ২৩ সদস্য আটক» « আয়ারল্যান্ডকে উড়িয়ে বাংলাদেশের ফাইনাল ‘প্রস্তুতি’» « ময়মনসিংহ মেডিক্যালের ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি, ফটকে তালা ঝুলিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ» « দেশের পথে ওবায়দুল কাদের» « প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ১৭ অভিযুক্ত পাওয়া গেলো ছাত্রলীগের কমিটিতে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন॥ ঢাকা বিভাগের ৭০ আসনে বিএনপির প্রার্থী ২১০ জন

বিশেষ প্রতিনিধি, কিউ টিভি বাংলা॥

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। আসনভিত্তিক সম্ভাব্য প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়াও এগিয়েছে। ইতোমধ্যে ৩০০ আসনের জন্য ৯ শতাধিক প্রার্থীর একটি তালিকা করেছে দলটি। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১৩ জেলার ৭০টি আসনে বিএনপির প্রার্থী তালিকায় স্থান পেয়েছেন ২১০ নেতা।
বিএনপির সিনিয়র এক নেতা জানান, বিএনপিকে বাইরে রাখতে এবারও ক্ষমতাসীনরা নির্বাচন করার চেষ্টা করবে। এর অংশ হিসেবে দলের অনেক তারকা নেতাকে মামলার জালে ফাঁসিয়ে নির্বাচনের বাইরে রাখার চেষ্টাও হতে পারে। তাই আগামী নির্বাচনের জন্য দলের একাদিক প্রার্থীকে প্রস্তুত করা হচ্ছে। অপেক্ষাকৃত নবীন এবং অনভিজ্ঞ অনেক নেতাকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সঙ্গতকারণে প্রায় সব আসনেই বিএনপির একাধিক নেতার নাম থাকছে। শেষপর্যন্ত সবচেয়ে যোগ্য প্রার্থীর পক্ষে যদি নির্বাচন করা সম্ভব না হয় তাহলে বিকল্প প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হবে। তিনিও যদি নির্বাচন করতে না পারেন তাহলে পরবর্তী নেতা নির্বাচন করবেন। নির্বাচনে কোনো আসনে কোনো অবস্থায় যাতে প্রার্থী সংকট না হয় সে জন্যই এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও মামলা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে অনেক হেভিওয়েট প্রার্থীর পাশে অপেক্ষকৃত জুনিয়র নেতারাও আছেন। প্রাথমিক তালিকায় ঢাকার একটি আসনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নামও রয়েছে।
টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী): বিএনপির প্রার্থী তালিকায় আছেন দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফকির মাহবুব আনাম স্বপন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম ও সুপ্রিমকোর্ট শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী, কানাডা প্রবাসী বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মাহবুব ভূঁইয়া (লতিফ), ধনবাড়ী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রেজাউল হক, মধুপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র শহিদুল ইসলাম সরকার (সরকার শহীদ)।
টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর): যুবদল সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা ও ভূঞাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মেয়র অ্যাডভোকেট আব্দুল খালেক ম-ল।
টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল): বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা লুৎফর রহমান খান আজাদ, জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ শিল্পপতি মাইনুল ইসলাম ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি খলিলুর রহমান।টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী): বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কালিহাতী উপজেলা বিএনপির সভাপতি শিল্পপতি লুৎফর রহমান মতিন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ) ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এসএমএ খালিদ, কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা দলের যুগ্ম সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আ. হালিম, এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র ও জেলা বিএনপি নেতা মো. শাফী খান, মালয়েশিয়া বিএনপির নেতা ইঞ্জিনিয়ার বাদলুর রহমান খান ও বিএনপি নেতা বেনজীর আহমেদ টিটু।
টাঙ্গাইল-৫ (সদর): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হাসান, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ছাইদুল হক ছাদু ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা।
টাঙ্গাইল-৬ (নাগরপুর-দেলদুয়ার): বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা গৌতম চক্রবর্তী, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি রবিউল আওয়াল লাভলু, বিএনপি নেতা সাবেক মন্ত্রী নুর মোহাম্মদ খান, জেলা বিএনপি নেতা ও জেলা জিয়া পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ইউসুব আলী, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আরফান আলী মোল্লা, কেন্দ্রীয় কৃষক দলের নির্বাহী সদস্য আমিনুল ইসলাম মঞ্জু, উপজেলা বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট ইকবাল হোসেন খান ও জেলা বিএনপির সদস্য ব্যারিস্টার সাদাত খান।
টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর): মির্জাপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় নেতা আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, উপজেলা বিএনপি নেতা শিল্পপতি একেএম আজাদ স্বাধীন, কেন্দ্রীয় নেতা সাইদুর রহমান সাঈদ সোহরাব ও জেলা বিএনপির সদস্য ফিরোজ হায়দার খান।
টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ) ছাত্রদলের সভাপতি মো. ইয়ার মাহমুদ, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ওবায়দুল হক নাসির ও সখীপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান সাজু।
কিশোরগঞ্জ
কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর): জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি রেজাউল করিম খান চুন্ন, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাাহ সোহল, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি মাসুদ হিলালি, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হাজি ইসরাইল মিয়া ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ওয়ালিউল্লাাহ রাব্বানী ।
কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদি-পাকুন্দিয়া): জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আসফাক আহমেদ জোন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি রুহুল আমিন আকিল, জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ইদ্রিস আলী ভূইয়া, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শহীদুজ্জামান কাকন, কটিয়াদীর সাবেক পৌর মেয়র তোফাজ্জল হোসেন খান দিলীপ ও পাকুন্দিয়ার সাবেক পৌর মেয়র অ্যাড. জালাল উদ্দিন ।
কিশোরগঞ্জ-৩ (তাড়াইল-করিমগঞ্জ): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ড. ওসমান ফারুক, জেলা যুব দলের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা ও করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাবেক ভিপি সাইফুল ইসলাম সুমন।
কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম): চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, প্রিন্সিপাল হাবিবুল ইসলাম ভূইয়া, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মো. আমীরুজ্জামান, সাবেক এমপি ফরহাদ আহমদ কাঞ্চনের ছেলে বর্তমানে ড্যাবের নেতা ডা. ফেরদৌস আহমদ চৌধুরী।
কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিতপুর): জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ নাসির, বাজিতপুর পৌর বিএনপির সভাপতি এহসান কুফিয়া, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সালেহুজ্জামানু খান রুনু এবং সাবেক এমপি মজিবুর রহমান মঞ্জুর ছেলে মাহমুদুর রহমান উজ্জ্বল।
কিশোরগঞ্জ-৬ (কুলিয়ারচর-ভৈরব): জেলা বিএনপির সভাপতি শরিফুল আলম ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন।
মানিকগঞ্জ
মানিকগঞ্জ-১ (দৌলতপুর-ঘিওর-শিবালয়): জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও এসএ জিন্নাহ কবীর, বিএনপির প্রয়াত মহাসচিব অ্যাডভোকেট খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ছোট ছেলে কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট খন্দকার আবদুল হামিদ ডাবলু, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের বড় ছেলে ও জেলা বিএনপির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ড. খন্দকার আকবর হোসাইন বাবলু।
মানিকগঞ্জ-২ (সিঙ্গাইর-হরিরামপুর): জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মঈনুল ইসলাম খান শান্ত।
মানিকগঞ্জ-৩ (সদর-সাটুরিয়া): জেলা বিএনপির সভাপতি আফরোজা খান রিতা ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিএনপির নেতা আতাউর রহমান আতা।
মুন্সীগঞ্জ
মুন্সীগঞ্জ-১ (শ্রীনগর ও সিরাজদিখান): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক মহিউদ্দিন খান মোহন এবং শ্রীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মমিন আলী ও সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।
মুন্সীগঞ্জ-২ (লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ী): বিএনপি কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ।
মুন্সীগঞ্জ-৩ (মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া): জেলা বিএনপি সভাপতি আব্দুল হাই এবং সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, সাবেক তথ্যমন্ত্রী এম শামসুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম।
ঢাকা
ঢাকা-১ (দোহার ও নবাবগঞ্জ): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান ও নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান খন্দকার আবু আশরাফ।
ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর): চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপির সভাপতি মনির হোসেন।
ঢাকা-৩ (কেরানীগঞ্জ): বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও তার মেয়ে বিএনপির প্রান্তিক জনশক্তি উন্নয়ন বিষয়ক সহ-সম্পাদক অপর্ণা রায়।
ঢাকা-৪ (শ্যামপুর): ২০০৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আবদুল হাই ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমেদ রবিন।
ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ী): বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সাবেক এমপি সালাউদ্দিন আহমেদ।
ঢাকা-৬ (সূত্রাপুর-কোতোয়ালি): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, তার ছেলে ইশরাক হোসেন এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার ও সহ-সাধারণ সম্পাদক হাজী লিটন।
ঢাকা-৭ (লালবাগ-চকবাজার): বিএনপির প্রয়াত নেতা নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টুর স্ত্রী ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি নাসিমা আক্তার কল্পনা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রাসেল।
ঢাকা-৮ (রমনা): বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক আলী ফালু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল ও যুগ্ম সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব।
ঢাকা-৯ (মুগদা-সবুজবাগ): স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সিনিয়র সহ-সভাপতি শামসুল হুদা।
ঢাকা-১০ (ধানম-ি): আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন অসীম ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি আবদুল লতিফ।
ঢাকা-১১ (বাড্ডা-ভাটারা): ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ূম ও তার স্ত্রী শামীম আরা বেগম।
ঢাকা-১২ (তেজগাঁও): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি মো. সাহাব উদ্দিন ও যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার।
ঢাকা-১৩ (মোহম্মদপুর-আদাবর): বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি আতিকুল ইসলাম মতিন, সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট খন্দকার জিল্লুর রহমান।
ঢাকা-১৪ (মিরপুর-শাহআলী): সাবেক এমপি ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এ খালেক ও তার ছেলে এস এ সিদ্দিক সাজু, নগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি মুন্সী বজলুল বাসিত আনজু, সহ-সভাপতি রবিউল আউয়াল।
ঢাকা-১৫ (কাফরুল): যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, ক্যান্টনমেন্ট থানা বিএনপি নেতা প্রিন্সিপাল লিয়াকত আলী।
ঢাকা-১৬ (পল্লবী): বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান।
ঢাকা-১৭ (গুলশান-ক্যান্টনমেন্ট): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি আবদুল আলীম নকী।
ঢাকা-১৮ (উত্তরা): বিএনপির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর।
ঢাকা-১৯ (সাভার): জেলা বিএনপির সভাপতি দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর (অব.) মিজানুর রহমান।
ঢাকা-২০ (ধামরাই): চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান খান, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ।
গাজীপুর
গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর): জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. সাইয়েদুল আলম বাবুল, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য মো. মুজিবুর রহমান ও হুমায়ুন কবির খান।
গাজীপুর-২ (গাসিক ও ক্যান্টনমেন্ট): কেন্দ্রীয় নেতা মো. হাসান উদ্দিন সরকার, কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের কার্যকরী সভাপতি মো. সালাহ উদ্দিন সরকার।
গাজীপুর-৩ (শ্রীপুর-সদর): জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মো. সাখাওয়াত হোসেন সবুজ, শ্রীপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. শাহজাহান ফকির, ওলামা দলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি পীরজাদা এসএম রুহুল আমিন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. মো. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু।
গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া): বিএনপির প্রয়াত নেতা আসম হান্নান শাহর ছেলে মো. রিয়াজুল হান্নান, কাপাসিয়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মো. জামাল উদ্দিন ।
গাজীপুর-৫ (কালীগঞ্জ): বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম ফজলুল হক মিলন, ঢাবি শাখা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মো. মনির হোসেন।
নরসিংদী
নরসিংদী (সদর): বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন এবং জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর এলাহী।
নরসিংদী-২ (পলাশ): বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মইন খান এবং অ্যাডভোকেট আবদুল বাছেদ ভূইয়া
নরসিংদী-৩ (শিবপুর): জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মাস্টার এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া।
নরসিংদী-৪ (বেলাব-মনোহরদী): সাবেক এমপি সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল, লে. কর্নেল (অব.) মো. জয়নাল আবেদীন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূইয়া জুয়েল।
নরসিংদী-৫ (রায়পুরা): সাবেক সাংসদ আবদুল আলী মৃধা, বিএনপি নেতা জামাল উদ্দিন, অ্যাডভোকেট এ কে নেছার উদ্দিন এবং ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন বকুল।
নারায়ণগঞ্জ
নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ): জেলা বিএনপির সভাপতি কাজি মনিরুজ্জামান, বিএনপির চেয়ারপারসন উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তফিজুর রহমান দিপু ভূইয়া।
নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার): বিএনপির ধর্মবিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান খসরু, সাবেক এমপি আতাউর রহমান আঙ্গুর ও কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম আজাদ।
নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও): সাবেক মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রেজাউল করিম, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান।
নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ): সাবেক এমপি মো. গিয়াস উদ্দিন, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শাহ আলম, ফতুল্লা থানা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মনিরুল আলম সেন্টু, জেলা বিএনপি সদস্য ব্যারিস্টার পারভেজ।
নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর): সাবেক এমপি ও মহানগর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান।
রাজবাড়ী
রাজবাড়ী-১ (সদর ও গোয়ালন্দ): সাবেক এমপি আলী নেওয়াজ মোহাম্মদ খৈয়ম, উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এম এ খালেক।
রাজবাড়ী-২ (পাংশা-কালুখালী-বালিয়াকান্দি): সাবেক এমপি নাছিরুল হক সাবু ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুন আর রশিদ ।
ফরিদপুর
ফরিদপুর-১ (বোয়ালমারী-মধুখালী-আলফাডাঙ্গা): বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শাহ মোহাম্মদ আবু জাফর, সাবেক এমপি ও ফরিদপুর জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি খন্দকার নাছিরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা সাহাবুদ্দীন আহম্মেদ সতেজ।
ফরিদপুর-২ (সালথা-নগরকান্দা): বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক (ফরিদপুর-বিভাগ) শামা ওবায়েদ, নগরকান্দা বিএনপির সাবেক সভাপতি কেএম জাহাঙ্গীর হোসেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ( ঢাকা বিভাগ) সহিদুল ইসলাম বাবুল।
ফরিদপুর-৩ (সদর): বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, ফরিদপুর জেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল হক শাহজাদা মিয়া, যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুবুল হাসান পিংকু।
ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন): বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ইয়াসমিন আরা হক, চরভদ্রাসন উপজেলা চেয়ারম্যানর বাদল আমীন, ভাঙ্গা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. আলী আজম।
গোপালগঞ্জ
গোপালগঞ্জ-১ (মুকসুদপুর ও কাশিয়ানী একাংশ): কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সেলিমুজ্জামান, গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এফ ই শরফুজ্জামান জাহাঙ্গীর।
গোপালগঞ্জ-২ (গোপালগঞ্জ সদরও কাশিয়ানী একাংশ): গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতা এম এইচ খান মঞ্জু, এম মসুনসুর আলী ও মোঃ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ।
গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া): কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা এস এম জিলানী, মো. আসাদুজ্জামান, উপজেলা বিএনপি নেতা আফজাল হোসেন।
মাদারীপুর
মাদারীপুর-১ (শিবচর): বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইয়াজ্জেম হোসেন রোমান, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আবু জাফর চৌধূরী, জেলা বিএনপির সদস্য খলিলুর রহমান ঠান্ডু চৌধুরী ও জেলা বিএনপির আরেক সদস্য নুরুদ্দিন মোল্লা।
মাদারীপুর-২ (সদর ও রাজৈর): মহিলা দল নেত্রী ও সাবেক এমপি হেলেন জেরিন খান, জেলা বিএনপির সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক আবু মুন্সি ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাহান্দার আলী জাহান।
মাদারীপুর-৩ (কালকিনি ও সদর একাংশ): সাবেক ছাত্রনেতা আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, বিএনপির ফরিদপুর বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাশুকুর রহমান ও বিএনপি নেতা কালকিনি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান আজাদ।
শরীয়তপুর
শরীয়তপুর-১ (সদর-জাজিরা): জেলা সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন কালু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলতাফ শিকদার।
শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর): জেলা সভাপতি শফিকুর রহমান কিরন, কেন্দ্রীয় নেতা জামাল শরিফ হিরু, সাবেক মন্ত্রী টি এম গিয়াস উদ্দিন।
শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-গোসারহাট-ভেদরগঞ্জ): মিয়া নুর উদ্দিন অপু, বিএনপির প্রয়াত নেতা হেমায়েত উল্লাহ আওরঙ্গের স্ত্রী তাহমিনা আওরঙ্গ, জেলা সহ-সভাপতি ডা. এস এম কামাল উদ্দিন ও জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদ আহমেদ আসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com