হালাল গোশত রফতানি করতে চায় প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়

গার্মেন্টসসহ অন্যান্য রফতানি খাতের মতো হালাল গোশতসহ প্রাণিসম্পদ খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর দফতরে বাংলাদেশ ভেটেরিনারি অ্যাসোসিয়েশন, বঙ্গবন্ধু ভেটেরিনারি পরিষদ ও বিসিএস প্রাণিসম্পদ ক্যাডার অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, প্রাণিসম্পদ বিভাগে যারা দক্ষ জনশক্তি রয়েছে, তাদের আন্তরিকতা ও একাগ্রতা থাকলে দেশে প্রাণি সম্পদের উন্নয়নে অভাবনীয় সাফল্য আসবে। এ সাফল্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করবে শুধু তাই নয়, বরং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। পৃথিবীর বিভিন্ন মুসলিম দেশসহ অন্যান্য দেশে হালাল ও ভালো গোশত রফতানির চাহিদা রয়েছে। প্রক্রিয়াজাতকরণসহ প্রাণি সম্পদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়ন করতে পারলে রফতানি ক্ষেত্রে আমরা অনেক দূর এগুতে পারবো।

মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী চান না দেশে একজন মানুষও না খেয়ে থাকুক। সংবিধানে বর্ণিত মৌলিক চাহিদা তথা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা তিনি নিশ্চিত করতে চান। প্রান্তিক কৃষক ও জেলেদের জন্য আমরা এমন কিছু করে দিতে চাই যাতে তাদের দুরাবস্থা না থাকে।

প্রাণিসম্পদ উন্নয়নের জন্য আমরা যদি তাদের সহজে ঋণ দিতে পারি, দিক-নির্দেশনা দিতে পারি তাহলে দারিদ্র্য একদিন জাদুঘরে চলে যাবে। সেক্ষেত্রে প্রাণি সম্পদের বিভিন্ন পর্যায়ে যারা সম্পৃক্ত আছেন তাদের যথাযথ ভূমিকা রাখতে হবে। অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যাশার জায়গা থেকে বলবো শুধু অ্যাসোসিয়েশন কেন্দ্রিক জায়গায় আবদ্ধ থাকবেন না। দেশ, জাতি, সমাজ সভ্যতা, মানুষের প্রতি দায়িত্ববোধ এবং প্রাণিকূলের জন্য দায়িত্ব পালন করতে হবে। এ জায়গা থেকে বিচ্যুত হবেন না। এসময় অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা গোশত, দুধ ও ডিমে দেশকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে মন্ত্রণালয়ের গৃহিত সকল কার্যক্রমে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। পরে অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা মন্ত্রীর হাতে শুভেচ্ছা স্মারক ক্রেস্ট তুলে দেন।

0 0 vote
Article Rating
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x